ব্রেকিং নিউজ

আগেকার মত ছবি বানাতে প্রযোজকদের মিলনমেলা

প্রযোজক

সুপরিসর কক্ষটি মানুষে পূর্ণ। টেবিলে টেবিলে লিফলেট। এক টেবিলে সামনে-পাশাপাশি এমনও মানুষ বসেছিলেন, যাঁদের পরস্পরের শীতল সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। সে সম্পর্কের প্রভাব অবশ্য পড়েনি। বরং সবাই মিলেমিশে আলাপ, কুশল বিনিময়, ভোট চাওয়ায় দারুণ কয়েকটি ঘণ্টা পার করেছেন তাঁরা।

দীর্ঘ ৮ বছর পর বাংলাদেশে চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিবেশক সমিতির নির্বাচন হচ্ছে। তফসিল অনুযায়ী ২৭ জুলাই শনিবার বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (বিএফডিসি) ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এবার সাধারণ ও সহযোগী সদস্য মিলে মোট ৫২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আর তাঁদের বিপরীতে ভোটার আছেন ১৯০ জন। সাধারণ সদস্য পদে প্রার্থী ৪৩ জন। সহযোগী সদস্য পদের প্রার্থী ৯ জন। প্রযোজক সমিতি সূত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী দুই ধাপে অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচন। প্রথম ধাপের ভোটে ১৯ জন প্রার্থী নির্বাচন করবেন ভোটাররা। দ্বিতীয় ধাপে নির্বাচিত ১৯ জনের মধ্য থেকে নির্বাচিত হবেন সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ বিভিন্ন সম্পাদকীয় পদের প্রার্থী। এবার নির্বাচনে কোনো প্যানেল থাকছে না। যে যাঁর মতো স্বকীয়ভাবে নির্বাচনে অংশ নেব

গত সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে আয়োজিত প্রযোজক সমিতির নির্বাচন-পূর্ব প্রার্থী পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রযোজকদের এই অনুষ্ঠানে একই মঞ্চে এ সময় দেখা যায় অভিনেতা, নির্মাতা ও প্রযোজক আলমগীর থেকে শুরু করে ঢাকাই ছবির শীর্ষ নায়ক শাকিব খান, অভিনেতা ও প্রযোজক রুবেল, শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান, পরিচালক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুশফিকুর রহমান গুলজার, প্রযোজক সমিতির নেতা খোরশেদ আলম খসরু, মধুমিতা হলের কর্ণধার ইফতেখার নওশাদ, মিরপুরের সনি সিনেমা হলের মোহাম্মদ হোসেন, ফেনীর কানন সিনেমা হলের আবদুল্লাহ চৌধুরী হিমেলসহ আরও অনেককে। চলচ্চিত্রের নবীন-প্রবীণ প্রযোজকদের উপস্থিতিতে মিলনমেলায় পরিণত হয়েছিল পরিচিতি সভা। মূলত নির্বাচনের প্রার্থী ও ভোটাররা এসেছিলেন সেখানে। অনুষ্ঠানে প্রার্থীরা তাঁদের আগামী দিনের পরিকল্পনা তুলে ধরেন। শাকিব খান নায়ক হিসেবে পরিচিতি এবং জনপ্রিয়তা পেলেও অনুষ্ঠানে তিনি মূলত প্রযোজক হিসেবেই এসেছিলেন।

প্রার্থী পরিচিতি সভায় প্রযোজকদের উদ্দেশে আহ্বান জানিয়ে চিত্রনায়ক আলমগীর বলেন, ‘একসঙ্গে কাজ করলে একটু মনোমালিন্য হতেই পারে, কিন্তু সেটাকে দিনের পর দিন ধরে রাখা ঠিক নয়। চলচ্চিত্রে বিভাজন খুব খারাপ, দয়া করে এগুলো বন্ধ করে চলচ্চিত্রে মনোনিবেশ করুন। চলুন, আমরা একটা সমাধানের দিকে যাই। চলচ্চিত্রের সবাই আমরা একই পরিবারের সদস্য, চলুন না সব ভুলে গিয়ে আমরা একসঙ্গে পথ চলি।’ নিজের বক্তব্যের এক ফাঁকে প্রযোজক ও অভিনেতা শাকিব খানেরও প্রশংসা করেন আলমগীর। বলেন, ‘শাকিব খান একাই এখন ইন্ডাস্ট্রিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে। আমাদের উচিত সবার একসঙ্গে পথ চলা।’ চলচ্চিত্রে সোনালি অতীত ফেরাতে প্রযোজকদের ভূমিকার বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি। এবারের নির্বাচনে ১৯টি পদের জন্য ৪১ জন নির্বাচন করছেন জানিয়ে আলমগীর বলেন, ‘আমি ৪১ জন প্রযোজকের কাছে ৪১টি ছবি চাই। এতে করে আমাদের ছবির সংখ্যা বাড়ব

সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে শাকিব খানও প্রযোজকদের উদ্দেশে বিভেদ ভুলে একসঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, বিভেদ ধ্বংসই করতে পারে, মঙ্গল বয়ে আনতে পারে না। 
এই সমিতির সর্বশেষ নির্বাচন হয় ২০১১ সালের ১৮ আগস্ট। ২০১১-১৩ মেয়াদি এই নির্বাচনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে জয়ী হন যথাক্রমে সোহেল রানা ও ডিপজল। এরপর কমিটির মধ্যে নানা জটিলতার কারণে আর নির্বাচন হয়নি। সরকারি প্রশাসক দিয়ে চলে আসছিল এই সমিতি। এরপর ২০১৬-২০১৮ মেয়াদি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন প্রশাসক। কিন্তু প্রযোজক সমিতির গঠনতন্ত্র ৯ (গ) ধারা দেখিয়ে একজন প্রযোজক হাইকোর্টে মামলা ঠুকে দিলে নির্বাচন বন্ধ হয়ে যায়।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ খবর

সাম্প্রতিক প্রকাশনা সমূহ

   সাম্প্রতিক খবর



»