ব্রেকিং নিউজ

খুলনায় পুলিশ, পাটকল শ্রমিক সংঘর্ষ! আহত ১৬

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাটকলের শ্রমিকদের দেশব্যাপী তিন দিন কাজ বন্ধ ছিল, গতকাল
(৪ এপ্রিল) খুলনায় পুলিশ ও কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে ১৬ জন আহত হয়েছে ।

ক্রিসেন্ট, প্ল্যাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপুর, স্টার, ইস্টার্ন ও আলিম জুট মিলস সহ প্রধান মিলগুলি থেকে শ্রমিকরা তাদের নয়টি চাহিদা বাড়ানোর জন্য বিক্ষোভে জড়িত হয়, যার মধ্যে তাদের বকেয়া সাশ্রয়, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকদের গ্র্যাচুইটি এবং বীমা পরিশোধ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

বিক্ষোভকারীরা শহরে অবস্থান নেয় এবং এক পর্যায়ে টায়ারে আগুন দেয় । বিক্ষোভের সময় তারা দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক ও রেলপথ অবরোধ করে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গতকাল সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে নতুন রাস্তায় রেল লাইন বন্ধ করে বিক্ষোভকারীরা ভিডিও ফুটেজ এবং ছবি তুলে নেওয়ার চেষ্টা করে এমন সময় একজন পুলিশকর্মী তাদের পিছু নিলে শ্রমিকরা আন্যত্র চলে যায়।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী মোস্তাক আহমেদ দাবি করেন, কয়েকজন কর্মী চার পুলিশ সদস্যকে আহত করে পুলিশ বক্সে হামলা চালায়। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আহত চারজন, আবুল বাসার, মনির, রায়তুল ও রায়হান। আহত পুলিশকে নিয়ে আসা একটি অ্যাম্বুলেন্সও হামলা চালায় তারা।

যোগাযোগের পর খুলনা মহানগর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শেখ মনিরুজ্জামান দাবি করেন, পাটকল কর্মীরা কোনো উদ্দীপনা ছাড়াই পুলিশকে আক্রমণ করে।

তবে জুট মিল ওয়ার্কার্স লীগের সভাপতি সরদার মোতাহার উদ্দিন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, পুলিশকর্মীদের ওপর হামলায় কোনো কর্মী জড়িত ছিল না।

খুলনায় অন্যান্য স্থানে, শ্রমিকরা খুলনা-যশোর সড়ক ও শোনাডাঙ্গা বাস স্ট্যান্ড, নোয়াবতী, এবং আত্রাই সড়ক ও অন্যান্য সড়ক অবরোধ করে। খুলনা থেকে অন্যান্য রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বাসের অপারেটররা জানান, রাত ১২ টা পর্যন্ত কোনো লম্বা রাস্তায় বাস ছাড়া যায় নি।

এদিকে নরসিংদীতে, শ্রমিকদের বিক্ষোভকারীরা ৬ টা থেকে তোরুয়া বাজার এলাকায় রেল রুট অবরোধ করে অবস্থান নেয়।

তারা রেল ট্র্যাকে আগুন দেয় এবং ইট পাটকেল ছুড়ে ফেলে। রাত ১১ টার দিকে শ্রমিকরা কর্ণফুলি এক্সপ্রেস ট্রেনটি বন্ধ করে দেয় যা ঢাকায় থেকে চট্রগ্রাম যাচ্ছিল।

নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ চৌকির উপ-পরিদর্শক ফিরোজ আহমেদ জানান, রেলওয়ে পুলিশ ও অগ্নিনির্বাপকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ট্রেনটি সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে আবার শুরু হয়।

এ দিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেন সেবা গতকাল শ্রমিকদের বিক্ষোভের কারনে স্থগিত করা হয়েছে। সকাল থেকে চট্টগ্রাম -রাঙামাটি সড়কে শ্রমিকরা অবস্থান নেয়।

শ্রমিকরা অক্সিজেন-মুরাদপুর সড়কে বিক্ষোভ করে। বায়েজিদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আতাউর রহমান খন্দকার জানান, তারা রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে দেয় এবং যানবাহন চলাচলে ভিগ্ন ঘটায়। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

Leave a Reply

Recent Posts

ক্যালেন্ডার

July 2019
S S M T W T F
« Jun    
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  

   সাম্প্রতিক খবর



»