ব্রেকিং নিউজ

দুই কোচই লাল কার্ড দেখলেন চট্টগ্রামের ম্যাচে

লাল কার্ড দেখলেন দুই কোচই

কোনো ফুটবল ম্যাচে ৫ গোল মানে এমনিতেই বাড়তি রোমাঞ্চ। তারপর চার-চারটি লাল কার্ড কতটা উত্তেজনায় ছড়ায় বলাই বাহুল্য। সেই ৪ লাল কার্ড-এর দুটি আবার একই দলের দুজন ফুটবলার দেখেছেন। দলটা শেষ ২০ মিনিট নেমে আসে ৯ জনে। বাকি দুটি লাল কার্ড কোনো ফুটবলার দেখেননি। দেখেছেন দুই দলের কোচ! আর এতে ম্যাচটা পায় ভিন্নমাত্রা। এমন এক ম্যাচই আজ দেখা গেল চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে। শেখ কামাল ক্লাব কাপের ষষ্ঠ দিনের প্রথম খেলায়। বাংলাদেশের লিগ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংসের মুখোমুখি হয়েছিল ভারতের আই লিগের চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সিটি এফসি। প্রথম ম্যাচে হেরে যাওয়ায় দুই দলের কাছেই এই ম্যাচটি হয়ে দাঁড়ায় টিকে থাকার মরণপণ লড়াই । তাতে ৩-২ গোলে জিতে ৬ দলের এই প্রতিযোগিতায় থাকল বসুন্ধরা কিংস।

২৪ মিনিটে একটি ফাউলকে কেন্দ্র করে ১২ মিনিট খেলা বন্ধ থাকল বিস্ময়করভাবে। বসুন্ধরার মিডফিল্ডার ইমন বাবু ফাউল করেন চেন্নাইয়ের এক খেলোয়াড়কে। এই সময় চেন্নাইয়ের জাপানি মিডফিল্ডার কাতসুমি ইউসা শ্রীলঙ্কান রেফারির কাছে ইমনের বিরুদ্ধে হলুদ কার্ডের আবেদন করেন। রেফারির সঙ্গে তর্কবিতর্কে জড়ান অহেতুক। একপর্যায়ে রাগে গজরাতে গজরাতে মাঠ থেকে বেরিয়ে এসে চতুর্থ রেফারির টেবিলে লাথি মেরে বসেন। শুরু হলো মাঠে উত্তেজনা। চেন্নাইয়ের কর্মকর্তারা ডাগআউট থেকে অন্য ফুটবলারদের ডাকেন বেরিয়ে আসতে। শেষমেশ খেলা শুরু হলো, তবে অবধারিতভাবে লাল কার্ড দেখলেন মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গলে খেলা সোনালি চুলের জাপানি ফুটবলার কাতসুমি। মেজাজ হারিয়ে এতটাই রেগে ছিলেন, কারও কথাই শুনছিলেন না মাঠে।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে আবার গোলমাল। এবারও একটি ফাউলের বাঁশিকে কেন্দ্র করে ঘটনার শুরু। বসুন্ধরার স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রুজোন এ সময় যান চেন্নাইয়ের ডাগআউটে। পাল্টা তেড়ে আসেন চেন্নাইয়ের কোচ মোহাম্মদ আকবরও। দুজনে এক ফাঁকে হাতাহাতিতেও জড়ান! শ্রীলঙ্কান রেফারি লাকমল নিলেন কঠোর সিদ্ধান্ত। দুই কোচকেই দিলেন লাল কার্ড। এরপর ম্যাচে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন চেন্নাই সিটির সুয়ারেজ। সব মিলিয়ে ম্যাচটা হয়ে দাঁড়ায় লাল কার্ডময়।

এখানেই শেষ নয়। ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে চেন্নাইয়ের সহকারী কোচ সত্য সাগর আনেন বড় এক অভিযোগ। তিনি বলেন, ’আমাদের জাপানি ফুটবলারকে রেফারি বর্ণবাদী গালি দেন। তাকে চায়না বলেন (জাপানিদের চায়না বলা বর্ণবাদী আচরণ মনে করা হয়)। সে চীনা নয়, জাপানি ফুটবলার। এটা বলার কারণে ও মেজাজ ধরে রাখতে পারেনি। আমরা রেফারির কাছে এমন আচরণ আশা করি না।’ এই ঘটনায় চেন্নাইয়ে দলটিকে ভীষণ ক্ষুব্ধ দেখাল। তবে দলটির ফুটবলার কাতসুমির অখেলোয়াড়োচিত আচরণেরও সমালোচনা করেছেন অনেকে। একই সঙ্গে কয়েকজনের অসহিষ্ণু আচরণ চোখ এড়ায়নি কারও।

ঘটনাবহুল ম্যাচে ৬ ও ৮৯ মিনিটে দুটি গোল করেন বসুন্ধরা কিংসের লেবানিজ ফুটবলার জালাল কদো। তৃতীয় গোলটি ৬০ মিনিটে বখতিয়ারের। চেন্নাইয়ের গোলদাতা পেদ্রো (৪৩) ও মাশুরশেরিফ (৭১)। এই জয়ে দুই ম্যাচে ৩ পয়েন্ট হলো বসুন্ধরার। দুই ম্যাচই হেরে শেখ কামাল ক্লাব কাপ থেকে বিদায় নিয়েছে চেন্নাই সিটি।

মন্তব্য করুন

সর্বশেষ খবর

সাম্প্রতিক প্রকাশনা সমূহ

   সাম্প্রতিক খবর



»