ব্রেকিং নিউজ

অসামাজিক কাজ চলছে আবাসিক হোটেলেও

সিলেট নগরীর বন্দরবাজার লালদিঘীরপাড়াস্থ হোটেল সুপার (আবাসিক)-এ আকস্মিক অভিযান চালিয়েছে অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে ৭ নারীসহ মোট ১০ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ অভিযান চালায় কোতায়ালী থানা পুলিশ।আটককৃতরা হলেন কুড়িগ্রাম জেলার বাজার হাট থানার পিংকি (২৫), গাজীপুর জেলার শ্রীপুর থানার কাননবাজারের পান্না (২৬), ময়মনসিহং জেলার মুক্তগাছা থানার মধ্যপাড়ার কবিতা (২৮), চট্টগ্রাম জেলার পাচলাইশ থানার বরদারহাট গ্রামের বৃষ্টি (২৫), গাজীপুর জেলার সদর থানার চান্দুরা গ্রামের রিমি আক্তার (২২), যশোর জেলার শার্শা থানার কালিয়ানি গ্রামের রাবেয়া (২৫), নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্দিরগঞ্জ থানার ওয়াবদা কলোনীর খাদিজা (২০), সিলেটের বিয়ানীবাজার থানার বোনা শালেশ্বর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস (৪২), সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার সালপাড় গ্রামের আব্দুল বাছিত (৩৫) ও সিলেট নগরীর সোবহানীঘাট এলাকার মো. সুলতান আহমদ (৪০)।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বিশ্বকাপে আজ বিকালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড।

সাউদাম্পটনে রোজবল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় ম্যাচটি শুরু হবে।ক্যারিবীয়দের ‘বিস্ফোরক’ আখ্যা দিয়ে এ ম্যাচে কঠিন চ্যালেঞ্জ দেখছেন ইংলিশ অধিনায়ক ইয়ন মরগান। জানিয়েছেন, পুরোপুরি ফিট আছেন জশ বাটলার, একাদশে ফিরছেন মঈন আলী। 

এদিকে প্রতিপক্ষের চেয়েও ওয়েস্ট ইন্ডিজের চিন্তার কারণ বৃষ্টি।

রাষ্ট্রায়ত্ত ৪টি ব্যাংকের (সোনালী, বিডিবিএল, কর্মসংস্থান ও প্রবাসীকল্যাণ ব্যাংক) লিখিত পরীক্ষা ২১ জুন অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে এ বিষয়ে তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

এই পরীক্ষায় ১০ হাজার ৫৯৪ প্রার্থী অংশ নেবেন। যাঁরা এ পরীক্ষায় অংশ নেবেন, তাঁদের রোল ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, গত ২৪ মে এই চার ব্যাংকের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এখান থেকে পাস করা প্রার্থীরা লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেবেন। উত্তীর্ণ প্রার্থীদের ২ ঘণ্টাব্যাপী ২০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা ২১ জুন শুক্রবার বেলা ৩ টা থেকে ৫টা পর্যন্ত বিভিন্ন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে। এ জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক রাজধানীতে ৫টি কেন্দ্র ঠিক করে দিয়েছে। প্রার্থীরা তাঁদের রোল অনুসারে এসব কেন্দ্রে পরীক্ষা দেবেন। কেন্দ্রের নাম ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জানা যাবে।

জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটকে সাম্রাজ্যবাদ ও ধনীদের স্বার্থরক্ষাকারী বাজেট বলে আখ্যা দিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। তারা বলছে, এ বাজেট ধনীকে আরও ধনী ও গরিব-মধ্যবিত্তকে অসহায় করে তুলবে। এই বাজেট প্রত্যাহার করে প্রগতিশীল বাজেট প্রণয়নের দাবি জানায় সিপিবি।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের মোট ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করা হয়েছে। বাজেটে মোট ঘাটতি ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। বাজেট নিয়ে এক বিবৃতি দিয়েছে সিপিবি।

বিবৃতিতে সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহ আলম বাজেটকে গতানুগতিক আখ্যা দিয়ে বলেন, দেশের ৯৯ শতাংশ মানুষের পরিশ্রমের বিনিময়ে অর্থনীতির যে প্রবৃদ্ধি ঘটছে, তার মাত্র ১ শতাংশ তাদের এবং ৯৯ শতাংশই ১ শতাংশ ধনিকদের পকেটস্থ করা হয়েছে। তাঁরা বলেন, এ বাজেট ধনীদের আরও ধনী করবে এবং গরিব-মধ্যবিত্তকে আপেক্ষিকভাবে আরও দরিদ্র ও আর্থিকভাবে অসহায় করে তুলবে। বাজেটকে ‘সাম্রাজ্যবাদ ও লুটেরা ধনিক শ্রেণির স্বার্থরক্ষার গণবিরোধী দলিল’ হিসেবে আখ্যায়িত করে তা প্রত্যাখ্যান করেন তাঁরা।

বিবৃতিতে সিপিবি জানায়, এবারের বাজেটের আকার যেমন স্মরণকালের সর্বোচ্চ, তেমনি ঘাটতির পরিমাণও সবচেয়ে বেশি। বাজেট প্রস্তাবে রাজস্ব আহরণের যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে, তা কীভাবে অর্জিত হবে তা সুস্পষ্ট নয়। এই বিপুল পরিমাণ বাজেট ঘাটতি মেটানোর জন্য বিশাল ঋণের বোঝা চাপানো হয়েছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কর্মসংস্থান ইত্যাদি ক্ষেত্রে বাজেট বরাদ্দ পর্যাপ্ত পরিমাণে বৃদ্ধির দাবি অগ্রাহ্য করা হয়েছে।

বাজেটকে অনির্ভরযোগ্য ও অবাস্তবায়নযোগ্য প্রস্তাবে পরিণত করা হয়েছে জানিয়ে সিপিবি নেতারা বলেন, বাজেটের তথ্য ভিত্তির বিশ্বাসযোগ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠেছে। তাঁরা এ বাজেট প্রত্যাহার করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সমাজতন্ত্র, দরিদ্র জনগণের স্বার্থ প্রতিষ্ঠা ও প্রগতিশীল বাজেট প্রণয়নের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান।

শেরপুরের নকলায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতনের ফলে গর্ভপাতের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার করা মামলায় এক নারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ওই নির্যাতনের একটি ভিডিও চিত্র গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয়দের মুঠোফোনে ছড়িয়ে পড়েছে।

গ্রেপ্তার নারীর নাম নাসিমা আক্তার। তিনি উপজেলার ভূরদী গ্রামের আবদুল মোতালেবের মেয়ে। আজ বুধবার দুপুরে নকলা থানা-পুলিশ তাঁকে ভূরদী গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে। ‘নির্যাতনের শিকার’ ওই গৃহবধূর নাম ডলি খানম (২২)। তিনি উপজেলা সদরের কায়দা এলাকার মো. শফিউল্লাহর স্ত্রী ও স্থানীয় চন্দ্রকোনা কলেজের স্নাতক শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী।

পুলিশ ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, গৃহবধূ নির্যাতনের ওই ঘটনাটি ঘটেছে ১০ মে। পরে এ ঘটনায় দুটি মামলা হয়। প্রথম মামলাটি হয় ৩ জুন শেরপুরের সি. আর আমলি আদালতে। এ মামলায় ডলির স্বামী শফিউল্লাহ তাঁর তিন ভাই ও ভাবিসহ পাঁচজনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাতনামা আরও ৫ থেকে ৭ জনকে আসামি করেন। বিচারক শরীফুল ইসলাম খান মামলাটি তদন্ত করে ১০ কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিলের জন্য জামালপুরের পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দেন। দ্বিতীয় মামলাটি করেন ডলি নিজে। আজ বুধবার সকালে নয়জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৩ থেকে ৪ জনকে আসামি করে নকলা থানায় মামলা করেন।

ডলিকে নির্যাতনের ঘটনায় ধারণ করা ভিডিও চিত্রের আংশিক প্রকাশ পেয়েছে গতকাল মঙ্গলবার। ভিডিওতে দেখা যায় ডলিকে দুটি গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছে। নকলা, শেরপুর, মে ১২। ছবি: সংগৃহীত

মামলার এজাহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কায়দা এলাকার মৃত হাতেম আলীর ছোট ছেলে মো. শফিউল্লাহর সঙ্গে জমি নিয়ে তাঁর বড় ভাই আবু সালেহ, সলিমউল্লাহ ও নেছার উদ্দিনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ ও মামলা চলে আসছিল। এর জেরে গত ১০ মে সকালে শফিউল্লাহর দখলে থাকা জমির বোরো ধান জোর করে কাটতে যান সালেহ ও তাঁর লোকজন। এ সময় শফিউল্লাহ প্রথমে বাধা দেন। তবে প্রতিপক্ষের ধাওয়ায় তিনি পিছু হটে নকলা থানায় যান। একপর্যায়ে সালেহর লোকেরা ধান কাটা শুরু করলে শফিউল্লাহর তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ডলি খানম তাঁদের বাধা দিতে যান। এ সময় সালেহর নির্দেশে সলিমউল্লাহ, নেছারউদ্দিন ও তাঁর স্ত্রী লাকি আক্তারসহ অন্যান্যরা ডলিকে ঘেরাও করেন। একপর্যায়ে তাঁরা ডলির চোখে-মুখে মরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে দেন। এরপর তাঁরা ডলিকে টেনে-হিঁচড়ে পাশের খেত সংলগ্ন ইউক্যালিপটাস গাছের সঙ্গে দুই হাত এবং অন্য একটি গাছের সঙ্গে দুই পা বেঁধে ফেলেন।ডলিকে নির্যাতনের ঘটনায় ধারণ করা ভিডিও চিত্রের আংশিক প্রকাশ পেয়েছে গতকাল মঙ্গলবার। ভিডিওতে দেখা যায় ডলিকে দুটি গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছে। নকলা, শেরপুর, মে ১২। ছবি: সংগৃহীত

মামলার এজাহারের আরও বলা হয়, গাছের সঙ্গে বাঁধার পর ডলির শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারধর করা হয়। এতে ডলি গুরুতর আহত হন এবং ঘটনাস্থলেই তাঁর গর্ভপাত হয়। সংবাদ পেয়ে নকলা থানা-পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় পুলিশ গুরুতর অবস্থায় ডলিকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায় এবং ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে সালেহ ও তাঁর ছোট ভাইয়ের স্ত্রী লাকিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তবে আটক করার কিছুক্ষণ পরে ওই দুজনকে পুলিশ ছেড়ে দেয়।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ১০ মে থেকে ১৬ মে পর্যন্ত নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং ১৬ মে থেকে ২২ মে পর্যন্ত জেলা সদর হাসপাতালে ডলিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। জেলা সদর হাসপাতাল থেকে ২২ মে রোগীর দেওয়া ছাড়পত্রে উল্লেখ করা হয় শারীরিক নির্যাতনের ফলে ডলির গর্ভপাত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১১ জুন) বিকেলে ডলির স্বামী মো. শফিউল্লাহ প্রথম আলোর কাছে অভিযোগ করেন, জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে তাঁর ভাই-ভাবীরাসহ তাদের ভাড়াটে লোকজন নির্যাতন করে তাঁর স্ত্রীর গর্ভের সন্তান নষ্ট করেছেন।

শফিউল্লাহর বড় ভাই নেছার উদ্দিন ডলিকে গাছের সঙ্গে বাঁধার কথা স্বীকার করেন। তবে ডলিকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, শফিউল্লাহ ও ডলি তাঁদের সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য এ ধরনের অভিযোগ করেছেন।

নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাহনেওয়াজ বলেন, জমি নিয়ে ভাইদের মধ্যে বিরোধ ও দাঙ্গা-হাঙ্গামার আশঙ্কার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে দুপক্ষকে শান্ত করা হয়েছিল। তবে ঘটনার দিন গৃহবধূকে নির্যাতনের বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। তবে আজ বুধবার ডলি খানম থানায় মামলা করেছেন। ইতিমধ্যে এজাহারভুক্ত আসামি লাকি আক্তারের বড়বোন নাসিমা আক্তারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

এ ব্যাপারে পিবিআই, জামালপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সীমা রাণী সরকার আজ বুধবার বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, আদালত থেকে আজ তারা মামলার কাগজপত্র পেয়েছেন। তদন্ত করে দ্রুত আদালতে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে।



»