ব্রেকিং নিউজ

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগ দেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

যোগ্যতা: জন্মসূত্রে বাংলাদেশি নাগরিক হতে হবে। বিবাহিত/ অবিবাহিত উভয়েই আবেদন করতে পারবেন।
বয়স: ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ তারিখে অনুর্ধ্ব ৪০ বছর।

শিক্ষাগত যোগ‌্যতা: এফসিপিএস/এফআরসিএস/এমএস/এমডি অথবা সমমান যা বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক স্বীকৃত।

ক্যাটাগরি: ১) কার্ডিওলজিষ্ট ২) নিউক্লিয়ার মেডিসিন ৩) রেডিয়েশন অনকোলজিষ্ট ৪) মেডিকেল অনকোলজিষ্ট ৫) সার্জিক্যাল অনকোলজিষ্ট ৬) পালমোনোলজিস্ট ৭) অর্থোপেডিক সার্জন ৮) ইন্টারনাল মেডিসিন ৯) গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি ১০) এন্ডোক্রাইনোলজি ১১) ইনটেনসিভিস্ট ১২) নিউরো সার্জন।

আবেদনের সময়সীমা: ২৭ জুলাই, ২০১৯ তারিখ পর্যন্ত।

বিজ্ঞপ্তি:

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

রংপুরে পাসপোর্ট করতে গিয়ে আটক হয়েছেন তিন রোহিঙ্গা তরুণী। রবিবার দুপুরে রংপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয় থেকে তাদের আটক করেন পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তারা। আটকরা হলেন- তাসমিনা বেগম (২৪), শারমিন আক্তার (২০) এবং সুমাইয়া আক্তার (২০)।

রংপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক নূরুল হুদা জানান, আজ (রবিবার) দুপুরে ওই তিন তরুণী পাসপোর্ট করতে অফিসে আসেন। কথা বলার সময় সন্দেহ হলে তাদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নকল বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান তিনি।

নেইমার ফিরছেন না বার্সেলোনায়, জানিয়ে দিলেন বার্সেলোনা সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউ। নেইমার বার্সেলোনায় ফিরছেন কী ফিরছেন না, তা নিয়ে বহুদিন ধরেই জল্পনা কল্পনা চলছিল। স্পেনের অনেক সংবাদমাধ্যম দাবি করেছিল, সামনের মৌসুমে নেইমারকে বার্সেলোনার জার্সি গায়ে খেলতে দেখা যাবে। সেই জল্পনায় পানি ঢেলে দিলেন বার্সেলোনা সভাপতি।

সকল দ্বন্দ্বের অবসান ঘটিয়ে কাতালান ক্লাবটির সভাপতি জানিয়ে দিলেন, ‘‌এবছর নেইমারকে কেনা সম্ভব নয় বার্সেলোনার পক্ষে। আমরা সবাই জানি নেইমার আর পিএসজির জার্সি গায়ে খেলতে চান না। তিনি বার্সেলোনাতে ফিরতে চাইছেন। অনেক ভক্তও চাইছে নেইমার বার্সেলোনায় ফিরে আসুক। কিন্তু এর পাশাপাশি আমরা আরও জানি নেইমারকে পিএসজির ছাড়তে চায় না। তাই নেইমারকে এবছর বার্সেলোনায় নিয়ে আসা সম্ভব নয়।’‌অনেক আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম দাবি করেছিল যে স্বয়ং মেসি নাকি নেইমারকে বার্সেলোনায় আবার ফিরিয়ে আনতে চাইছেন। সেই সকল দাবিকে নস্যাৎ করে ক্লাব সভাপতি জানিয়েছেন, ‘‌মেসি কোনোদিন খেলোয়ার কেনা-বেচা নিয়ে মন্তব্য করেননি। তিনি শুধু এমন একটি দল চান, যে দল বড় ম্যাচে ভাল পারফর্ম করতে পারবে।’‌

পাশাপাশি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউ আরও বলেন, ‘‌এই মৌসুমে আমরা ডেম্বেলে, কুটিনহো এবং নেলসন সেমেডোকে ছাড়ব না। ডেম্বলে একজন তরুণ ও প্রতিভাবান প্লেয়ার। তাকে বিক্রি করার আপাতত কোনো পরিকল্পনা নেই আমাদের।’‌‌

কোপা আমেরিকার ফাইনালে পেরুর বিপক্ষে ৩-১ গোলে জয় পেয়েছে ব্রাজিল। ব্রাজিলের হয়ে একটি করে গোল করেছেন এভারটন, গ্যাব্রিয়েল জেসুস ও রিকার্লিসন। পেনাল্টি থেকে পেরুর একমাত্র গোলটি করেন গুরেরো।

পরিসংখ্যান থেকে শুরু করে দুই দলের শক্তিমত্তা—সবকিছুতেই পেরুর চেয়ে কয়েক কদম এগিয়ে ব্রাজিল। অন্তত এই কোপা আমেরিকায় তো বটেই! এর আগে যে চারবার (১৯১৯, ১৯২২, ১৯৪৯ ও ১৯৮৯) নিজেদের মাটিতে কোপা আমেরিকা আয়োজন করেছিল ব্রাজিল, প্রতিবারই শিরোপাটা নিজেদের করে নিয়েছে স্বাগতিকেরা। এবার নয় কেন? আজকের ফাইনালেও ব্রাজিলই ছিল ফেবারিট। পুরো ম্যাচে তিতের শিষ্যরা খেলেছেনও ফেবারিটের মতো করেই। রক্ষণ-মাঝমাঠ-আক্রমণ প্রতিটি বিভাগেই ব্রাজিলের খেলোয়াড়েরা সুরে বাঁধা ছিলেন। ফলাফলটাও গেছে সেলেসাওদের পক্ষে। প্রথমার্ধেই প্রতিপক্ষের জালে ২-১ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে যাওয়া ব্রাজিল শেষ পর্যন্ত ৩-১ গোলের ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে।


২০০৭ সালে শেষবার কোপা আমেরিকার শিরোপা ছুঁয়ে দেখেছিল ব্রাজিল। এরপর বিশ্বজুড়ে বদলেছে অনেক কিছুই। কিন্তু ব্রাজিলের আর কোপার শিরোপা জেতা হয়নি। ২০১৬ সালে এই পেরুর কাছে হেরেই তো কোপার গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিল দুঙ্গার ব্রাজিল। এবার সেই পেরুকে হারিয়েই শিরোপা জয়ের উদ্‌যাপনটা করল তিতের ব্রাজিল। এবারের শিরোপা জয়টা ব্রাজিলের জন্য আরও একটা কারণে মনে রাখার মতো। কারণ, এবার যে ব্রাজিলের জন্য ‘অভিশপ্ত’ মারাকানাজোতেই শিরোপা জয়ের উল্লাসটা করলেন জেসুস-আলভেজরা।



»